খেলাধুলা

হ্যান্ডবল খেলার নিয়ম । হ্যান্ডবল খেলার মাঠের মাপ । বিস্তারিত

হ্যান্ডবল খেলার নিয়ম । হ্যান্ডবল খেলার মাঠের মাপ । বিস্তারিত : সারাবিশ্বে, বিশেষ করে অস্ট্রেলিয়া- ইউরোপ-আমেরিকায় অত্যন্ত জনপ্রিয় খেলা হচ্ছে হ্যান্ডবল খেলা। আজকের পোস্টে আমরা হ্যান্ডবল খেলার নিয়ম, হ্যান্ডবল মাঠের মাপ সহ বিস্তারিত জানবো।

হ্যান্ডবল খেলার নিয়ম
হ্যান্ডবল খেলার নিয়ম

হ্যান্ডবল খেলার নিয়ম । হ্যান্ডবল খেলার মাঠের মাপ । বিস্তারিত

হ্যান্ডবল খেলার সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

বিশেষজ্ঞদের মতে হ্যান্ডবল খেলার উৎপত্তি হয়েছে জার্মানিতে। দ্বাদশ-ত্রয়োদশ শতাব্দীতে জার্মান গীতি কবিতায় ক্যাচবল (Catch ball) জাতীয় খেলার উল্লেখ আছে। ১৯০৪ খ্রীষ্টাব্দে ডেনমার্কের জনৈক শিক্ষক হোলজার নিয়েলগণ Hand bold নামে একটি খেলা প্রবর্তন করেন। ১৯১৭ সালে মহিলাদের ক্রীড়া শিক্ষক বার্লিনের ম্যাক্স হিসার মেয়েদের জন্য অভিনব পদ্ধতির হ্যান্ডবল খেলা প্রচলন করেন। ১৯১৯ সালে বার্লিনের অপর একজন ক্রীড়া শিক্ষক কার্ল শিলেঞ্জ এই খেলায় তার নিজস্ব পদ্ধতি সংযোজন করে এর উৎকর্ষ সাধন করেন ও আস্তে আস্তে এর প্রসার ঘটাতে থাকেন। জার্মানিতে হ্যান্ডবলের আন্তর্জাতিক সংস্থা গঠিত হয় ১৯২৮ সালে। হ্যান্ডবল খেলা ১৯৬৪ সালে প্রথম এশিয়ান গেমসে এবং ১৯৭২ সালে প্রথম অলিম্পিকে অন্তর্ভুক্ত হয়। ১৯৮২ সালের ৬ জুন বাংলাদেশে হ্যান্ডবল খেলার সূচনা হয়। বর্তমানে বাংলাদেশে হ্যান্ডবল একটি জনপ্রিয় খেলা ।

হ্যান্ডবল মাঠের মাপ

হ্যান্ডবল মাঠের মাপ
হ্যান্ডবল মাঠের মাপ

হ্যান্ডবল মাঠের মাপ-হ্যান্ডবল মাঠের দৈর্ঘ্য ৪০ মিটার এবং প্রস্থ ২০ মিটার। মাঠটি অবশ্যই আয়তাকার হবে। ৪০ মিটারের লাইনকে সাইড লাইন এবং ২০ মিটারের লাইনকে গোল লাইন বলে। ইনার গোল লাইন ব্যতীত মাঠের সকল দাগ ৫ সে.মি. চওড়া হবে।

মাটি থেকে গোল পোস্টের উচ্চতা হবে ২ মিটার এবং এক সাইড বার থেকে অন্য সাইড বারের দৈর্ঘ্য হবে ৩ মিটার। গোল পোস্ট ও ক্রসবারের ব্যাস হবে ৮ সে.মি.।

গোল পোষ্টের সম্মুখ বরাবর মাঠের দিকে ৬ মিটার দূরে গোল লাইনের সমান্তরালে ৩ মিটার লম্বা একটি সরলরেখা টানতে হবে। এরপর উভয় সাইড বারের পিছনের দিকে ভিতরের কোনা হতে ৬ মিটার ব্যাসার্ধের দুটি বৃত্তচাপ অংকন করে গোল লাইনের সাথে যুক্ত করে গোল এরিয়া তৈরি করতে হবে।

ফ্রি থ্রো লাইনটি ভাঙা ভাঙা অর্থাৎ ১৫ সে.মি. ভরা ও ১৫ সে.মি. ফাঁকা হবে। লাইনটি গোল এরিয়া লাইনের সমান্তরালে ৩ মিটার বাইরে হবে।

প্রতিটি গোল লাইনের ঠিক মধ্যবিন্দু হতে মাঠের দিকে ৭ মিটার দূরে গোল লাইনের সমান্তরালে ১ মিটার লম্বা একটি লাইন টানতে হবে। একে সেভেন মিটার লাইন বা পেনাল্টি লাইন বলে।

খেলার সময়কাল উভয় অর্ধে ৩০ মিনিট এবং মধ্যবিরতি ১০ মিনিট (৩০+১০+৩০)।

হ্যান্ডবল বলের সাইজ ও ওজন

বলটি অবশ্যই গোলাকার এবং চামড়া বা কৃত্রিম ধাতুর তৈরি হবে। খেলা আরম্ভের সময় পুরুষদের ক্ষেত্রে বলের ওজন হবে ৪২৫ গ্রাম থেকে ৪৭৫ গ্রাম, পরিধি ৫৮ থেকে ৬০ সে.মি. এবং মেয়েদের ক্ষেত্রে বলের ওজন হবে ৩২৫ গ্রাম থেকে ৩৭৫ গ্রাম, পরিধি ৫৪ থেকে ৫৬ সে. মি. ।

হ্যান্ডবল খেলার নিয়ম

প্রত্যেক দলে সর্বমোট ১২ জন খেলোয়াড় থাকে। তার মধ্যে ১ জন গোলরক্ষকসহ মোট ৭ জন খেলোয়াড় মাঠে থাকবে এবং ৫ জন বদলি খেলোয়াড় হিসেবে থাকবে। খেলার শুরুতে অবশ্যই একটি দলের কমপক্ষে ৫ জন খেলোয়াড় মাঠে থাকতে হবে।

মাঠ খেলোয়াড়রা জার্সি বদল করে গোলরক্ষক হিসেবে খেলতে পারে।

নির্ধারিত সময়ে খেলা অমীমাংসিত থাকলে অতিরিক্ত ৫মিনিট করে খেলা হবে ।

খেলা আরম্ভ বা বিরতির পর বা গোল হওয়ার পর ‘থ্রো অফ’-এর মাধ্যমে খেলা শুরু হবে।

গোল রক্ষার জন্য গোলরক্ষক তার গোল এরিয়ার মধ্যে শরীরের যে কোন অংশ দিয়ে খেলতে পারে।

তবে গোল এরিয়ার বাইরে গোলরক্ষকের ক্ষেত্রেও কোর্ট খেলোয়াড়ের নিয়মগুলো প্রযোজ্য হবে।

বল পার্শ্বরেখা অতিক্রম করলে থ্রো-ইন দিয়ে খেলা শুরু হবে।

বৈধভাবে বলটি সম্পূর্ণরূপে ইনার গোল লাইন অতিক্রম করলে গোল হয়েছে বলে ধরা হবে। বেশি গোল অর্জনকারী দলই বিজয়ী দল হিসেবে গণ্য হবে।

খেলা পরিচালনার জন্য দুজন রেফারি, একজন সময়রক্ষক ও একজন স্কোরার থাকেন।

সাতজন বীরশ্রেষ্ঠের নাম ও জীবন বৃত্তান্ত

কোর্ট খেলোয়াড়-

ক. বাহু, মাথা, দেহ, ঊরু এবং হাঁটু ব্যবহার করে বলকে নিক্ষেপ করতে, ধরতে, থামাতে ও আঘাত করতে পারবে।

খ. বলটি সর্বোচ্চ ৩ সেকেন্ডের জন্য হাতে বা মাটিতে ধরে রাখা যাবে।

গ. বল হাতে নিয়ে ৩ কদম এর বেশি দেয়া যাবে না ।

ঘ. বল মাটিতে একবার বাউন্স করে এক বা উভয় হাত দিয়ে ধরা যাবে।

ঙ. এক হাত দিয়ে বল বারবার বাউন্স করে বা এক হাত দিয়ে বলটি মাটিতে গড়িয়ে এক বা উভয় হাতে বলটি ধরা যাবে। প্রতিপক্ষ দলকে ফ্রি থ্রো দেওয়া হবে-

ক. ত্রুটিপূর্ণভাবে খেলোয়াড় বদলি করলে।

খ. গোলরক্ষক নিয়ম ভঙ্গ করলে।

গ. মাঠ খেলোয়াড় গোল সীমা আইন ভঙ্গ করলে।

ঘ. বল খেলার সময় আইন ভঙ্গ করলে।

ঙ. ইচ্ছাকৃতভাবে সাইড লাইন বা গোল লাইন অতিক্রম করে বল খেললে ।

চ. প্রতিপক্ষের প্রতি অবৈধ আচরণ করলে।

ছ. ত্রুটিপূর্ণ থ্রো-অফ করলে।

জ. ত্রুটিপূর্ণ থ্রো-ইন করলে।

ঝ. ত্রুটিপূর্ণ পেনাল্টি থ্রো করলে ।

ঞ. ত্রুটিপূর্ণ ফ্রি থ্রো করলে।

ট. অখেলোয়াড়োচিত আচরণ করলে।

ঠ. গোলরক্ষকের কাছে গোল সীমায় ব্যাক পাস করলে।

আল্লাহর ৯৯ নাম সমূহ (বাংলা অর্থ সহ) 99 Names of Allah

প্রতিপক্ষ দল ‘পেনাল্টি থ্রো’ পাবে-

ক. মাঠের যে কোন জায়গায় কোন খেলোয়াড় বা কর্মকর্তা আক্রমণকারী দলের একটি গোলের উজ্জ্বল সুযোগ অবৈধভাবে নষ্ট করে দিলে।

খ. একটি নিশ্চিত গোল করার সময় যদি কোন অবৈধ বাঁশির সংকেতে তা নষ্ট হয়ে যায়।

গ. মাঠে প্রবেশের অনুমতি নেই এমন কোন ব্যক্তির বা বস্তুর কারণে যদি একটি নিশ্চিত গোলের সুযোগ নষ্ট হয়।

হ্যান্ডবল খেলার নিয়ম । হ্যান্ডবল খেলার মাঠের মাপ । বিস্তারিত – সংক্রান্ত পোস্টটি আপনাদের উপকারে আসলেই আমাদের শ্রম স্বার্থক হবে। পোস্ট সংক্রান্ত আপনাদের মূল্যবান মতামত কমেন্টবক্সে জানাতে পারেন। ধন্যবাদ। হ্যান্ডবল সংক্রান্তু আরও তথ্য উইকিপিডিয়াতেও দেখতে পারেন।

Samim Ahmed

Hey! I'm Samim Ahmed (Admin of ShikhiBD). I love to write and read on the topic of current affairs. Since my childhood; I have been an expert in writing feature posts for various magazines.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button